পদার্থবিজ্ঞান কাকে বলে

যে বিজ্ঞান বস্তু এবং তার গতি-প্রকৃতি নিয়ে কাজ করে তাকে পদার্থবিজ্ঞান বলে। এর মূল লক্ষ্য পৃথিবীর আচরণ বোঝার চেষ্টা করা। পৃথিবীতে সবচেয়ে বিখ্যাত ফিজিক্স জার্নালের নাম ‘Nature’.  পদার্থ এবং শক্তি নিয়ে পড়াশোনা আর তাদের পারষ্পরিক আচরণ নিয়ে গবেষণাই এর উদ্দেশ্য।

😀কূপমণ্ডূকেরা চাকরির বিজ্ঞপ্তিতে অনেক সময় পদার্থবিজ্ঞান না লিখে শুধু পদার্থ লিখে রাখেন, তাহলে বাকিরা কি অপদার্থ? বাকিরা না হলেও যারা লিখে রাখেন তারা অপদার্থই বটে।

কিছু প্রশ্নের উত্তরঃ

  • পদার্থবিদ্যার প্রধান শাখাগুলো কি?

উত্তরঃ চিরায়ত বলবিদ্যা, আধুনিক পরার্থবিদ্যা, নিউক্লিয়ার পদার্থবিদ্যা, পারমাণবিক পদার্থবিদ্যা, ভূ পদার্থবিদ্যা, কোয়ানটাম পদার্থবিদ্যা ইত্যাদি।

  • পদার্থবিজ্ঞানের জনক কে?

উত্তরঃ স্যার আইজ্যাক নিউটনকে জনক হিসেবে ধরা হয়। অতীতে এরিস্টটল, গ্যালিলিও এদেরও অবদানও উপেক্ষনীয় নয়। পরবর্তীতে আইনস্টাইনও প্রচন্ড প্রভাববিস্তারকারী ছিলেন।

আরো পড়ুন- বুলিয়ান এলজেবরা কি, কোয়ান্টাম কম্পিউটেশন

 
আরো পড়ুন-  কোয়ান্টাম কম্পিউটেশন এর প্রাথমিক ধারণা

admin

আমার সম্পর্কে তেমন কিছু বলার নেই। লিখতে পারি না, তাই সবার লেখার জন্য প্ল্যাটফর্ম তৈরির চেষ্টা করছি।

Leave a Reply

error: Content is protected !!